এক গৃহবধূর পার্সোনাল ডায়েরী [২] – Bangla Choti Collections

এক গৃহবধূর পার্সোনাল ডায়েরি – ৫ম পর্ব
১৫ ই February
ভ্যালেন্টাইন ডের অবাধ যৌনতা র রেশ সামলাতে আমি আজ সারাদিন বাড়িতেই অধিকাংশ সময় বিছানায় শুয়ে কাটালাম। আমার বর একটা সুন্দর সোনার নেকলেস আমাকে গিফট করেছিল। রাতে করেও তার খিদে পুরোপুরি মেটে নি। আমি বাড়িতে আছি দেখে সেও আজ অফিস গেলো না। ছেলে স্কুলে বেরিয়ে যাওয়ার পরেই নিখিলেশ আমার রুমে এসে নিজের হাউস কোট খুলে আমার পাশে এসে শুলো। তারপর দুপুরের খাবার হজম করতে না করতেই আমাকে নিজের কাছে টেনে আদর করতে শুরু করলো। সারা দুপুর অবাধে আদর করে আমার সারা শরীর লাল করে দিয়ে ছেলে স্কুল থেকে ফেরার ঠিক আগে থামলো। ছেলে এসে যখন দেখলো আমি তখনো বিছানায় শুয়ে আছি। সকালের পড়া নাইটি তখনও চেঞ্জ করি নি। সে অবাক হয়ে আমাকে জিগ্যেস করল, ” তোমার কি শরীর খারাপ মা, সকাল থেকে দেখছি খালি বিছানায় শুয়ে আছ।” আমি জবাব দিয়েছিলাম,” আমার কিচ্ছু হয় নি সোনা, আসলে কাল খুব ধকল গেছে তো ঘুমানোর সময় পাই নি। তাই আজ বিছানা ছাড়তে ইচ্ছে করছে না।” ওর বাবা যে আমাকে রাত থেকে বিছানা থেকে উঠতেই দিচ্ছে না সেটা আর বলতে পারলাম না।
১৭ ই ফেব্রুয়ারি
মিসেস মালিয়ার আমন্ত্রণে উইকএন্ড পার্টি তে ক্লাবে গেছিলাম। আমি মোটামুটি ভাবে বেশ তাড়াতাড়ি হার্ড ড্রিংক পেগ শেষ করছি দেখে মিসেস মালিয়া আমাকে বেশ অ্যাপ্রসিয়াট করলেন। উনি বললেন ” তোমার তো বেশ তাড়াতাড়ি ইমপ্রুভমেন্ট হচ্ছে দেখছি। ভেরি গুড।” রাই পাশ থেকে কমেন্ট পাস করলো, এত কিছুই না। এই মেয়ে আস্তে আস্তে সবাই কে মাত করে দেবে, প্লিজ নিজের হাসব্যান্ড আর বয় ফ্রেন্ড দের সামলে রাখবে, এর হাত থেকে কেউ সেফ না। হি হি হি..” আমি রাই এর কথা শুনে লজ্জা পেয়েছিলাম। এই দিন আমি আমার পরবর্তী মডেলিং অ্যাসাইনমেন্টের ডেট জানতে পেয়েছিলাম। পর পর দুদিন দুটো ব্র্যান্ডের পোশাকের প্রমোশনে ফটো শুট শিডিউল ঠিক হয়েছিল।
১৮ ই ফেব্রুয়ারি
রাই কে বলে মিস্টার চৌধুরী আমাকে সারা দিনের জন্য শহরের কাছাকাছি একটা রিসোর্টে নিয়ে এসেছিলেন। যথারীতি বিছানায় ওনার সাথে অন্তরঙ্গ মুহূর্ত কাটাতে হলো। এনাল সেক্স করলেন। বললেন আমার সঙ্গে শুয়ে শুয়ে নাকি ওনার একটা বদ অভ্যেস হয়ে যাচ্ছে।, এখন আর অন্য নারী দের বিছানায় পছন্দ ই হচ্ছে না। এই কথা তাকে আমি কমপ্লিমেন্ট হিসাবে নিলাম। উনি আমাকে একটা দামী স্মার্ট ফোন গিফট করলেন। মিস্টার চৌধুরী বললেন, আমি যদি এই ভাবে কাজ করে ওনাকে খুশি করতে থাকি তাহলে আমাকে উনি অনেক কিছু পাইয়ে দেবেন। আমার ফিউচার টা সোনায় মুড়ে দেবেন। তার আগের দিন নিখিলেশ আমাকে হার্ড কোর করেছিল। তার পর দিন মিস্টার চৌধুরী যখন আজ করা সেই এক জায়গায় শুরু করলেন, খুব কষ্ট হচ্ছিল, আমি ওকে থামালাম, বললাম, ” আজকে প্লিজ ওখানে ঢোকাবেন না খুব লাগছে, আজ কে পারবো না। আজ তাহলে নতুন জায়গা দিয়ে ঢোকাচ্ছি।
পিছন ফিরে উপুড় হয়ে বসো। এই বলে আমায় পাছা তে একটা জোরে চাপড় মেরে নিজের পুরুষ অঙ্গ তাকে সামনে নিয়ে আসলেন। আমি ভয়ে ভয়ে মিস্টার চৌধুরী কে বললাম, ” না না সেটা করবেন না প্লিজ। আমি কোনো দিন পিছনে নিয়ে করি নি।” চৌধুরী সাহেব আমার এস হোল এর সতীত্ব ছেদ করবার ডিসিশন নিয়েই ফেলেছিলেন, সেটা আর পাল্টালেন না। বাধ্য হয়ে ওনার সামনে নিজের পাছা উন্মুক্ত করে দিতেই হল। বেশ জোরে কপাট করে নিজের পুরুষ অঙ্গ টা আমার যোনির মুখে সেট করিয়েই ভেতরে ঢুকিয়ে দেওয়াতেই আমি যন্ত্রণায় উই মা…. আহহহ লাগছে, ব্যাথায় মরে গেলাম।” বলে চেচিয়ে উঠলাম।
মিস্টার চৌধুরী নিজের পুরুষ অঙ্গ টা বের তো করলেন ই না উল্টে আমার গলা ধরে চরম ভাবে গাদন দিতে লাগলো। প্রতি ঠাপে মনে হচ্ছিল আমি ব্যাথায় আর যন্ত্রণায় মরেই যাবো।। এত জোরে ঠাপিয়েছিলেন যোনির ভেতর অবধি ফুলে লাল হয়ে গেছিলো। উপরের চামড়া ছিড়ে রক্ত বেড়াচ্ছিল। পাছার ছিদ্রে বাইরে আর ভেতরে ওষুধ লাগিয়ে ব্যাথা কমানোর ট্যাবলেট খেয়ে আমি কোনরকমে সেদিন কাতরাতে কাতরাতে বাড়ি ফিরেছিলাম। ভয়ানক ক্লান্ত ছিলাম। আর বাড়ি ফিরে না খেয়েই বিছানায় পড়ে ঘুমিয়ে পড়েছিলাম।
শেষে একটু রাতের দিকে যখন ঘুম ভাঙলো তখন আমার বর নিখিলেশ আমার উপর চড়ে বসে আমার সলাওয়ার টপের বোতাম খুলছে। সালওয়ার টপ তার বোতাম গুলো খুলে আমার টপ টা কে খুলে নিজের পাঞ্জাবি টা খুলে আমাকে জড়িয়ে শুয়ে পড়লো। কোমরের নীচে চাপ অনুভব করলাম। বুঝতে পারলাম আমার বর আমার প্যান্টি খুলবার চেষ্টা করছে, কিন্তু সফল হচ্ছে না। আমি অগ্যতা নিজের হতে পান্টি টা খুলে সেটা ছুড়ে মেঝে তে ফেলে, বেড সাইড ল্যামপের আলো টা নিভিয়ে দিলাম।
১৯ শে February
আমার পরবর্তী ফটো শুটের ড্রেস এর কপি আমার কাছে এসে পৌঁছাল। এবারের শাড়ী ব্লাউজ গুলো আরো বেশি চ্যালেঞ্জিং ছিল। নতুন বন্ধু আর মিস্টার চৗেধুরী র মতন ক্লায়েন্ট দের সঙ্গে পুল সিজন এঞ্জয় করবার জন্য সুইমিং ক্লাস এ যোগ দিলাম। এর জন্য কয়েক সেট সুইম স্যুট কেনা হলো। ।
২০ শে February
আমার জীবনের ২ য় মডেলিং ফটোশুট একটি নতুন গজিয়ে ওঠা স্টুডিও তে অনুষ্ঠিত হল। এই বারের শাড়ী টা ফুল ট্রান্সপারেন্ট ছিল। ব্লাউজ তাও ভীষণ চ্যালেঞ্জিং ছিল। কোনরকমে পরিবেশের সাথে এডজাস্ট করে ফটো শুট টা ভালোয় ভালোয় শেষ করলাম। চার ঘণ্টার মধ্যে কাজ শেষ হয়ে গেছিলো। ফটো শুট করে গাড়িতে উঠতে যাবো এমন সময় মিস্টার চৌধুরী এসে বললেন ওর গাড়িতে ফিরতে। আমি সরল বিশ্বাসে ওর গাড়িতে উঠলাম। কিন্তু একি কান্ড, গাড়ি আমাদের বাড়ির দিকে না গিয়ে একেবারে বিপরীত দিকে চলতে আরম্ভ করলো।
আমি ভয়ে ভয়ে জিগ্যেস করলাম, ” আমরা কোথায় যাচ্ছি? এটা তো আমার বাড়ির দিকে র রাস্তা না।” মিস্টার চৌধুরী গাড়ির ব্যাক সিটে আমাকে পেয়ে নিজের শরীরের যতটা কাছে সম্ভব ততটা কাছে টেনে নিয়ে বললেন, “আরে চলোই না, বেশি ক্ষণ তোমাকে আটকে রাখবো না।” মিস্টার চৌধুরী এরপর মিনিট পনেরোর মধ্যে আমাকে একটা হোটেলে নিয়ে আসলেন। গাড়ি থেকে হাত ধরে নামিয়ে, আমাকে অনিশ্চিয়তা তে রেখে একটা আগে থেকে রিজার্ভ করা রুমে র মধ্যে নিয়ে আসলেন। ঐ রুমের ভেতর একজন সুপুরুষ লম্বা চাওড়া মানুষের সঙ্গে পরিচয় করিয়ে দিয়ে বললো, ,”মিট মাই ফ্রেন্ড আরিয়ান।
আজকাল বাঙালি বিবাহিত নারীরা বাইরে বেরিয়ে কত উন্নতি করেছে সেটা দেখানোর জন্য তোমাকে ওর কাছে নিয়ে এসেছি। তুমি ফোটো শুট করে এসেছ। তাই খুব টায়ার্ড বুঝতে পারছি তবুও তোমার সাধ্য মত আমাদের এখন কোম্পানি দেবে। তারপর আমার গাড়ি তোমায় বাড়ি ছেড়ে দিয়ে আসবে।” আরিয়ান ননবেঙ্গলি ছিল।।যদিও বাংলা টা মোটের উপর ভালই বলে। সে আমার সংগে আলাপ করিয়ে দিয়ে বললো, ” এটে একটা বডিকন ওয়েষ্টার্ন ড্রেস আছে, এটা এক্ষুনি একবার পরে আসবেন প্লিজ।”
আমি বললাম, কেনো আমাকে বুঝি শাড়িতে দেখতে ভালো লাগছে না?” উনি হেসে রিপ্লাই দিলেন, আসলে একটা কর্পোরেট পার্টি হোস্ট করতে হবে, তাই আমরা একটা ছোটো লুক টেস্ট করছি এই আর কি।” আমি প্যাকেট টা হাতে নিয়ে ইতস্তত করছি দেখে মিস্টার চৌধুরী বললো, ” কাম অন মল্লিকা, চেঞ্জ করেই আসো না। এত ভাববার কি আছে?” আমি উত্তর দিলাম, একচুয়ালি আমি না কোনোদিন এই ধরনের পোশাক পড়ি নি। কাজেই……” আমাকে থামিয়ে আরিয়ান বলে উঠলেন, ” এই বার থেকে প্রয়োজন মত ইন্ডিয়ান ড্রেসের পাশাপাশি ওয়েস্টার্ণ কস্টিউম ও পড়বেন। আমাদের ক্লায়েন্ট রা এতে ইমপ্রেস হবে।” আমি বললাম, এটা পড়তেই হবে? না পড়লে চলবে না।”
চৌধুরী সাহেব রিপ্লাই দিলেন, উহু পড়তে তো হবেই, একটা কন্টাক্ট পেপারে সাইন করেছো আগের দিন মনে আছে। আমাদের চুক্তি বদ্ধ প্রফেশনাল মডেল অ্যান্ড হোস্টেজ হিসাবে, আমাদের নির্দেশ তোমাকে মেনে চলতে হবে অন্তত আগামী এক টা বছরের জন্য। তুমি চাইলে কন্ট্রাক্ট পেপার টা এখন আরো এক বার পড়ে দেখতে পারো। আমার কাছে তার একটা কপি আছে।”
এটা বলে মিস্টার চৌধুরী আমাকে কন্ট্রাক্ট পেপার এর একটা কপি দিলেন। আগের দিন ফাইভ স্টার হোটেলে ভালো করে না পড়েই সাইন করে দিয়েছিলাম। কিন্তু আজ এই চুক্তি পত্রের টার্মস অ্যান্ড কন্ডিশন গুলো ভালো করে খুঁটিয়ে পড়তে শুরু করতেই আমার হাত পা সব উত্তেজনায় ঠান্ডা হয়ে গেলো। ওখানে স্পষ্ট উল্লেখ করা ছিল, মিস্টার চৌধুরী র কোম্পানির হয়ে আমি আগামী একবছরের জন্য কাজ করতে সম্মতি প্রদান করছি। মিস্টার চৌধুরী র প্রাইভেট লিমিটেড কোম্পানি আমাকে দিয়ে যেকোনো কাজ করাতে পারবে। আমাকে বিনা শর্তে ডিউটি পালন করতে হবে। আমি যদি সেটা না করি সেটা চুক্তি ভঙ্গ হিসাবে বিবেচিত হবে। আমার বিরুদ্ধে ওরা আদালতে যেতে পারবে। কন্ট্রাক্ট পেপার টা পড়ে আমি আর কথা না বাড়িয়ে প্যাকেট টা নিয়ে পাশের ওয়াস রুমে গেলাম। আরিয়ান বলে উঠলো, এই তো গুড গার্ল, সুমতি ফিরেছে। চেঞ্জ নিজের ভোল পালটে এসো। চিন্তা নেই এর জন্য উপযুক্ত কম্পেনসেশন পাবে।
নতুন ড্রেস টা পড়ে আমি খুব অস্বস্তি তে পরলাম। ওটা পড়ার পর আমার শরীরের ৬০% এক্সপোজ হয়ে গেছিলো। সব থেকে আশ্চর্য্যের বিষয় ব্রা ফিট হচ্ছিল না। পরে জেনেছিলাম ঐ ধরনের কস্টিউম এ ব্রা পড়তে হয় না। মেয়েদের বুকের শেপ আর ক্লিভেজ পরিষ্কার বোঝানোর জন্যই এই ধরনের পোশাক ডিজাইন হয়েছে। ওটা পড়ার পর ওয়াশ রুম থেকে বেরিয়ে লজ্জায় কিছুতেই ওদের সামনে আসতে পারছিলাম না। শেষে মিস্টার চৌধুরী ভেতরে এসে আমাকে হাত ধরে টেনে বাইরে নিয়ে এসে, মিস্টার আরিয়ান এর সামনে দাড় করিয়ে দিল।
মিস্টার আরিয়ান আমাকে দেখে মোহিত হয়ে গেলেন, ওর মুখ থেকে তারপর একটাই শব্দ বের হলো। ” বিউটিফুল।” ওনার চোখের চাহনি টা আমার ভালো লাগলো না। আমি ওনার দিক থেকে মুখ সরিয়ে নিলাম, উনি ওনার পার্সোনাল ফোনে আমার কয়েক টা ছবি তুললেন। এগুলো আমি আমার কিছু ব্যাবসায়ী বন্ধুদের জন্য, এই ছবি গুলো দেখলে ওরা তোমাকে হায়ার্ড করতে চাইবে তাদের প্রাইভেট পার্টির আর কর্পোরেট ইভেন্ট এর জন্য। চৌধুরী ওর কথার রেশ টেনে বললো এটে আমাদের কোম্পানি প্রফিট করবে, ওদের পার্টি ইভেন্ট গুলো তো আমরাই এড়েঞ্জ করবো। ড্রেস কোড ও আমরাই ঠিক করে দেবো।
আমাকে মাঝখানে রেখে ওরা দুই বন্ধু মিলে ড্রিংক নেওয়া আরম্ভ করলো। আমাকে ওদের সাথে বসে সঙ্গ দিতে হয়েছিল। ড্রিংক নেওয়ার সাথে সাথে ওদের হাত গুলো আমার শরীরের নানা জায়গায় ঘুরছিল। আমি খুব অস্বস্তি ফিল করছিলাম। একই সাথে আমাকে মদ খেতেও বাধ্য করা হচ্ছিল। ড্রিংকে ওরা প্রথম থেকেই জল আর সোডা কম মেশা চ্ছিল। আস্তে আস্তে নেশাও হচ্ছিলো। এই ভাবে কিছুক্ষন কাটানোর পর মিস্টার চৌধুরী আমার জন্য একটা র ড্রিংক পেগ বানালেন।
গ্লাস টা আমার দিকে এগিয়ে দিতেই, আমি অনুনয়ের সুরে ওদের কে বললাম,” আমি না আর খাবো না। অভ্যাস নেই। এরপর বাড়ি ফেরা অসুবিধা হয়ে যাবে। আমি এখন বাড়ি ফিরবো।” এর জবাবে আরিয়ান বললো , ” আরে যাবেন মিসেস দত্ত সবে সন্ধ্যে সাড়ে সাত টা বাজে। এই ড্রিংক টা খান, আমাদের আরেকটু কোম্পানি দেন।।তারপর না ফিরবেন।”
মিস্টার চৌধুরী বললেন, ” কম অন মল্লিকা আমি কিন্তু অনেক এক্সপেক্টেশন নিয়ে প্রথম বার আমার কোনো বন্ধু অ্যান্ড বিজনেস পার্টনার এর কাছে তোমাকে এনেছি। এইভাবে বার বার বাড়ি ফিরবো বললে, আমার সন্মান টা কিন্তু আরিয়ান এর কাছে নষ্ট হচ্ছে। ও হয়তো ভাবছে আমি তোমাকে না টেস্ট করেই ওর কাছে নিয়ে এসেছি। একটু সুস্থ্য হয়ে বস না। ড্রিংক টা নাও দেখবে সব কিছু ইজি লাগবে।”
আমি মিস্টার চৌধুরীর কথা মেনে ঐ ড্রিংকের গ্লাসে চুমুক দিলাম। আর চুমুক দিয়ে প্রথম সিপ গলায় যেতেই, র অ্যালকোহল ড্রিংকের কড়া ঝাঁঝের রেশ গলায় ঢুকে কাশি এলো। আমি একটু খানি খেয়ে গ্লাস টা সরিয়ে রেখে বললাম, আমি খাবো না। ভীষণ খারাপ খেতে। মিস্টার চৌধুরী আমার কথা শুনলো না। নিজের হাতে করে একটু একটু করে পুরো গ্লাসের পানীয় আমাকে খাইয়ে তবে ছাড়লো।
ঐ ড্রিংক পেগ শেষ করার সঙ্গে সঙ্গে আমার মাথা টা ঘুরতে শুরু করে। আরিয়ান রিমোট টিপে এসির টেম্পারেচার টা কমিয়ে ১৮ থেকে ১২ ডিগ্রি তে করে দিলেন। আমার একটু শীত শীত করছিল। আমি কোনরকমে বললাম এসি টা একটু কমান প্লিজ এই ড্রেস পড়ায় ভীষণ ঠান্ডা লাগছে।” মিস্টার চৌধুরী বললেন “ড্রিংক নিচ্ছ একটু বাদেই গরম লাগবে। আর হলোও তাই। আরো এক পেগ খেতেই একটু গরম বোধ হতে শুরু করলো। তার সাথে আমি সোজা হয়ে বসতে পারছিলাম না।
তখন আরিয়ান বললেন, “শরীর খারাপ লাগছে, বালিশে মাথা রেখে একটু শুয়ে নিন না। সব ঠিক হয়ে যাবে।” আমি মাথা নাড়লাম কিন্তু মিস্টার চৌধুরী আমার বুকে হালকা পুষ করে বিছানার উপরে শুইয়ে দিলেন। আমি তৎক্ষণাৎ উঠবার জন্য একটা মরিয়া চেষ্টা করলাম কিন্তু পারলাম না। মাথা টা ঘুরছিল, নেশার ঘোরে চোখের দৃষ্টি ঝাপসা হয়ে আসছিল। তার ই মধ্যে স্পষ্ট দেখলাম, মিস্টার চৌধুরী আমার উপর চড়ে আমার ড্রেস খুলবার প্রচেষ্টা করছে। এরপর ইচ্ছা থাকলেও অঘটন টা কিছুতেই ঠেকাতে পারলাম না।
মিস্টার চৌধুরী টান মেরে আমার পোশাক টা খুলে ফেললেন। আরিয়ান আমার আরো কাছে চলে আসলেন। আমি লজ্জায় চোখ বন্ধ করে ফেললাম। মিস্টার চৌধুরী বললো,” এখনও তোমার এত লজ্জা মল্লিকা। এত সবে শুরু সুইট হার্ট। আগে আগে দেখো হোতা হ্যায় ক্যা। এই বলে উনি একটা ঠোঁটে ঠোট লাগিয়ে একটা গভীর চুম্বন করে আমাকে দিশেহারা করে দিয়ে বললো, আরিয়ান কাম অন ম্যান, আর দের কিস বাত কী, শি ইজ অল ইউর্স। মল্লিকা একদম লজ্জা করো না কেমন যা যা জানো সব টুকু উজাড় করে দিয়ে আমার বন্ধু টির খেয়াল রাখো। আমি যাই।
গাড়ি টা বাইরে রইলো, এদিক টা সামলে উঠে তারপর বাড়ি ফিরে যেও ক্ষণ। আরিয়ান টেক কেয়ার অফ মাই বিউটি, শি ইজ ভেরি ভেরি স্পেশাল ফর মী।” এই বলে মিস্টার চৌধুরী আমাকে নিজের বন্ধুর হেফাজতে রেখে সরে পড়লেন। আরিয়ান আমাকে একা পেয়ে আস্তে আস্তে শারীরিক ভাবে ঘনিষ্ট হলেন। লজ্জার মাথা খেয়ে তাকে বিছানায় সন্তুষ্ট করলাম, ওর সাথে বেশ পরিচ্ছন্ন সেক্স হলো। চাটাচাটি টেপা টেপি করে উনি কোনো সময় নষ্ট করলেন না । মিস্টার আরিয়ান দুই ঘণ্টার মধ্যে অনেক বার আমার যোনি থেকে রস নিংরে বার করলেন। আরিয়ান এক টানা যৌন সঙ্গম করে আমার যোনি কোমড় মাই সব ব্যাথা করে ছাড়লো।
আরিয়ান কে সন্তুষ্ট করে তার কাছ থেকে হাত খরচের জন্য মোটা টাকা আদায় করে ওর সঙ্গে ডিনার করে যখন ক্লান্ত পরাজিত আর মানষিক ভাবে বিধ্বস্ত মনে বাড়ি ফিরছিলাম, নিজের প্রতি বিবেকের দংশনে ঘেন্না হচ্ছিলো। আবার ব্যাগের ভেতর নতুন নোটের বান্ডিল দুটি স্বান্তনা দিচ্ছিল। কিছু পেতে গেলে কিছু খোয়াতে হয়। সব কিছুর জন্য দাম দিতে হয়। আমার যদিও অভাব ছিল না তবুও বেশি টাকার জন্য, রাই এর কথায় তাড়াতাড়ি উপরে উঠতে গিয়ে আমি না হয় নিজের ইজ্জত তাই খুইয়ে ফেলেছি, এটাই তো জীবন।”।
নিজের ফোনের দিকে নজর দিলাম। ও মা! ফোন সাইলেন্ট থাকায় শুনতে পাই নি। আমার বর আমি বাড়ি ফিরতে দেরি হচ্ছে বলে নয় নয় করে ২৩ বার কল করেছে। আরিয়ান এর সঙ্গে বিছানায় যৌন ক্রিয়ায় রত থাকায় একবারও ওর ফোন রিসিভ করতে পারি নি। গাড়ি করে বাড়ি ফেরার পথে রাই কে ফোন করলাম। ক্লান্তি টে শরীর তখন চলছিল না। আমার ক্লান্ত অবসন্ন শরীর সেই মুহূর্তে একটু শাওয়ার আর পর্যাপ্ত ঘুম চাইছিল। কিন্তু বাড়ি যেতে ইচ্ছে করছিল না। কারণ জানতাম বাড়ি গেলে ও রেস্ট পাবো না, উল্টে বর কে বিছানায় সন্তুষ্ট করতে করতে জান বেরিয়ে যাবে। যাতে বর এর সামনে অপ্রস্তুত না হতে হয় তাই রাই আমার ক্লান্তির সলিউশন বার করে দিল। ও একটা ওষুধ এর নাম বললো, বাড়ি ঢুকবার পথে কোনো বড় ওষুধের দোকান থেকে ওটা কিনে নিয়ে এক গ্লাস জলের সাথে খেলে সারা রাত এর জন্য নিশিন্ত। আমি জিগ্গেস করলাম, এই ওষুধ টায় কাজ হবে,?
রাই বললো, তুই একবার নিয়ে দেখ না। দশ কুড়ি মিনিটের মধ্যে কাজ শুরু হবে। দেখবি পুরো শরীরে একেবারে কেমন কামের আগুন জ্বলবে। রাই এর কথা মত ওষুধ টা কিনলাম। ওটা বেশ দামী ওষুধ। গাড়িতে আমার ভানিটি বাগে খাবার জল ছিল। সেটা বের করে বাড়ির রাস্তায় ঢুকবার ঠিক আগের মুহূর্তে ওষুধ টা খেয়েই নিলাম। গাড়ি যথা সময়ে আমার বাড়ির সামনে এসে থামলো। গাড়ির থেকে যখন নামলাম তখনো মদের নেশা পুরো পুরি কাটে নি একটু একটু ঘুরছিল। পা তলছিল। গাড়ির ড্রাইভার আমার অবস্থ্যা দেখে হেল্প করে বাড়ির দরজা অবধি পৌঁছে দিতে এগিয়ে আসছিল।
আমি হাত দেখিয়ে ওকে থামালাম। নিজেই টলতে টলতে এক পা দুই পা করে এগিয়ে গিয়ে দরজার কলিং বেল টিপলাম। নিখিলেশ এসে দরজা খুলে দিল। তখন ওষুধের প্রভাব স্টার্ট হয়ে গেছে। আমার বর দরজা খুলতেই, আমি ওর পাঞ্জাবির কলার চেপে ধরে বললাম, ” এই যে আমাকে এক্ষুনি বেড রুমে নিয়ে চলো। আমি আর পারছি না। অনেক রাত হয়েছে, তোমার সঙ্গে শোবো।” নিখিলেশ আমার মাদকতা ময় সৌন্দর্য্য দেখে নিজেকে আর স্থির রাখতে পারলো না। নিজের কোলে তুলে আমাকে বেডরুমে আমাদের বিছানায় নিয়ে গেছিলো।

এক গৃহবধূর পার্সোনাল ডায়েরি – পর্ব ৬
২২ শে February
আজ অফ ডে ছিল তবুও রাই আমাকে সকাল সকাল নিজের বাড়িতে ডেকে নিয়েছিল। ওর বাড়ি যেতেই একজন অচেনা স্টাইলিশ ধনী আমাদের বয়শি মহিলার সঙ্গে আলাপ করিয়ে দিয়ে বললো ইনি মিস নাগপাল। মুম্বাই এর এক নাম করা ইভেন্ট ম্যনেজার। উনি তোর মডেলিং ফটোশুট এর যে ভিডিও টা নেওয়া হয়েছিল প্রোডিউসার দের দেওয়ার জন্য সেটার একটা কপি এনাকে পাঠিয়েছিলাম। ওনার সেটা খুব ভালো লেগেছে। মিস নাগপাল আজকে মুম্বাই থেকে উড়ে এসেছেন শুধুমাত্র তোর সঙ্গে মিট করতে আর তোকে একবার মুম্বাই যেতে হবে ওর একটা কাজ করতে তার জন্য বেঙ্গলি traditional housewife লুকের একজন নারী দরকার। তুই সেই কাজ টা পাচ্ছিস। দুটো ফটোশুট একটা অ্যাড commercial তে তুই মিস নাগ পাল এর হাউস এর হয়ে কাজ করবি। বুঝলি?
কিন্তু আমি তো মুম্বাই কোনো দিন যাই নি রাই, আমি পারবো না।
রাই: কোনো দিন যাস নি তো কি হয়েছে। অনেক কিছুই তো প্রথম বার করলি গত দেড় মাসে। এটাও পারবি। পারতে তোকে হবেই।
আমি : মুম্বাই যাবো, এদিকে মিস্টার চৌধূরী যে বললো ওনার হয়ে কিসব কাজ করতে হবে। এর জবাবে রাই বললো, সেটা তো আছেই। এই কাজ টা করলে তোর ব্র্যান্ড ভালুর অনেক বেড়ে যাবে। কাজে তার রাজি না হবার তো কোনো কারণ নেই। আমার সাথে কথা হয়ে গেছে। তিনি তোর সঙ্গেই মুম্বাই যাচ্ছে। মুম্বাই এর কাজ সেরে গোয়া ঘুরতে যাওয়ার একটা প্ল্যান আছে। গোয়া টে নাকি ওর পার্টনার আরিয়ান ও তোদের সঙ্গে যোগ দেবে। এই সুযোগ ছাড়া উচিত না। প্রচুর টাকা কামানোর ব্যাপার। মিস নাগ পাল ও আমাকে বার বার বললো তুমকো জানাই পারেগা। হাম সাথ মে এ্যাডভান্স ভি লায়া হ্যা। এই বলে একটা দুই লক্ষ টাকার চেক আমাকে ধরিয়ে দিল। আমি চেক টা হাতে নিয়ে বললাম। ,” যদিও বা যাই, আমার হাসব্যান্ড নিখিলেশ কিছুতেই মানবে না।”
উফফ মল্লিকা নিখিলেশ দা কে তুই আজ ও চিনলি না। ও তোকে না তোর শরীর টা কে আটকে রাখতে চায়। এইবার আস্তে আস্তে বাঁধন টা কাটা। তোর মতন সুন্দরী নারীর পিছু টান থাকা উচিত না মুক্ত বিহঙ্গের মত ওর। বরের কথা ছেলের কথা চিন্তা করিস না। আমি এদিক টা ম্যানেজ করে নেব।” এই ভাবে হটাৎ করে মুম্বাই যাওয়া ঠিক হয়ে গেল। সেই দিন ই রাই আমার বাড়িতে গিয়ে আমার বর কে আমার মুম্বাই যাওয়ার ব্যাপারে মানিয়ে ফেললো। ও বলছিল যত দিন আমি থাকবো না ও নিজে আমাদের বাড়িতে এসে থাকবে। আমার স্বামী আর পুত্রের নজর রাখবে। নিখিলেশ রাই এর সেক্সী শরীর তার প্রতি ভীষণ রকম আসক্ত ছিল। প্রায়শই ওদের গ্রুপে নানা প্রাইভেসি পিস আদান প্রদান হত। তাই রাই এর প্রস্তাবে সাথে সাথে নির্লজ্জের মতো রাজি হয়ে গেল। রাই হেসে হেসে মস্করা করে আমার বর কে বলছিল, ” কি গো নিখিলেশ দা বউ তো মুম্বাই চলে যাচ্ছে গো প্রায় দুই তিন সপ্তাহের জন্য তোমাকে একা ফেলে, তার বদলে এইবার আমাকেই না হয় বিয়ে করে ফেলো।” এই বলে হেসে হেসে আমার বরের গায়ে গড়িয়ে পড়তে লাগলো। আমার বর ও রাই এর মতো স্নার্ট আধুনিকা নারী কে পেয়ে আমার সামনেই ওকে জড়িয়ে ধরে বললো, যদি মল্লিকার আগে তোমাকে দেখতাম, তাহলে তোমাকেই আমার বউ বানাতাম গো রাই সুন্দরী।” ওদের দুজনের ছেনালী দেখে আমার গা পিত্তি সব জ্বলে যাচ্ছিল। অনেক কষ্টে নিজেকে সামলে রাখলাম।
২৪ শে February
মুম্বই যাওয়ার ফ্লাইটের টিকিট হাতে পেলাম। পার্লারে গিয়ে মুম্বাই এর জন্য মাঞ্জা দিয়ে সাজলাম। মুম্বাই ট্রিপের সব প্রিপারেশন করে বাড়ি ফিরতে যাবো , এমন সময় রাই এসে আমাকে শপিং করতে নিয়ে গেলো। মুম্বাই আর গোয়ার জন্য পাল্লা দিয়ে সব কিছু আধুনিক পোশাক কসমেটিকস কেনা হলো। রাই জোর করে আমাকে মুম্বাই এর পর গোয়া ট্রিপের জন্য একটা ওয়ান পিস বিকিনি ড্রেস কেনালো। শপিং শেষে বাড়ি ফেরবার আগে একটা ক্যাফেটেরিয়া টে বসে কফি খাচ্ছিলাম, এই সময় তার ফোন এ একটা কল আসলো, সেটা রিসিভ করে “ওকে আমি আরো একজন কে নিয়ে আসছি”। ফোন টা রেখে রাই বলে উঠলো তোর শপিং এর খরচা টা তুলতে হবে চল আমার সঙ্গে।
আমি বললাম কোথায়?
রাই বললো, চল না জাস্ট একঘন্টার ব্যাপার। আমাকে সঙ্গে নিয়ে গাড়ি টা ছেড়ে দিয়ে একটা ট্যাক্সি নিয়ে উঠে পড়লো, কোথায় যাচ্ছি, কিসের জন্য যাচ্ছি কিছুই খুলে বললো না। শেষে একটা হোটেলের সামনে এসে রাই থামতে বললো। তারপর ভাড়া মিটিয়ে আমাকে নিয়ে হোটেলের ভেতরে একটা রুমের সামনে এনে দরজার বেল টিপলো। একজন মুখ চেনা ভদ্রলোক দরজা খুলে দিল। অনেক কষ্ট চিনতে পারলাম উনি আর কেউ না, মিস্টার চৌধুরীর সঙ্গে আমাকে বাথ টাবে অন্তরঙ্গ ভাবে দেখা মিস্টার হিরওয়ানি। আমাকে দেখে উনি একটা রহস্যময় হাসি হেসে আমার হাত ধরে আপ্যায়ন করে ভেতরে নিয়ে এসে বসালেন। রাই ও আমার পিছন পিছন ভেতরে আসলো। কিন্তু বেশিক্ষন আমাদের সঙ্গে বসলো না। কিছুক্ষণের মধ্যে উঠে পড়ে বললো, ” তুই এখানে মিস্টার হিরওয়ানি র সঙ্গে এঞ্জয় কর আমি পাশের রুমে আরেক জনের সঙ্গে আছি। এক ঘন্টা পর আমি বেল টিপবো তোকে একবার ডাকবো, তুই আমার সঙ্গে ফিরতে পারবি আবার থেকেও যেতে পারিস। চল দেখা হচ্ছে। Bye।” আমি স্তম্ভিত হয়ে গেলাম। রাই দরজা বন্ধ করে চলে গেলো আমি মিস্টার হিরওয়ানি র কাছে আটকা পরে গেলাম। মিস্টার হিরওয়ানি বললো, কি হলো ম্যাডাম, পাশে ওয়াস্রুমে ভালো বাথ ট্যাব আছে। আমার সঙ্গে গিয়ে সেখানে স্নান করবেন নাকি?” আমি জবাব দিলাম, ” না আজকে হাতে সময় নেই। তাড়াতাড়ি বেরোতে হবে।” হিরওয়ানি রিপ্লাই দিল, ঠিক আছে জলে না হলেও, বিছানাতেই তোমাকে ভালো করে খাবো। একদম লজ্জা করবে না। চৌধুরী যা দেয় আমি তার থেকে ডবল ই দেবো। তোমার ফোন নম্বর আমার চাই।”
আমি ফোন নম্বর দিতেই মিস্টার হিরওয়ানি
আমাকে টেনে বিছানায় ফেললেন। তারপর আমার উপর চড়ে বসলো। জোর করে কাপর টা খুলে নিজের আন্ডারওয়্যার খুলে পেনিস টা বার করে আমার সামনে আনলো। ওতো মোটা আর কালো পুরুষ অঙ্গ আমি এর আগে আমার লাইফে দেখি নি। ওর সাইজ দেখে আটকে উঠলাম। আমার মুখ টা দেখে উনি আমার মনের ভাব কিছুটা বুঝতে পেরেছিলেন। আমাকে ভালো করে নিজের পুরুষ অঙ্গ টা মুখের সামনে এনে বলল, ” কী গো সুন্দরী পছন্দ হয়েছে, আসলী মরদের চোদোন আজ তুমি পাবো। আর আরেকটা কথা আমি কিন্তু কনডম ছাড়াই করবো। রেডি তো।”
এই বলেই আমাকে সামলে ওঠার কোনো সুযোগ না দিয়ে পকাৎ করে আমার যোনি র ভেতর নিজের দৈত্য আকৃতির পুরুষ অঙ্গ গেথে দিয়ে আমাকে জড়িয়ে বিছানার উপর চেপে ধরে মনের সুখে ঠাপান দিতে লাগলো। এত বড় সাইজের পেনিস নেওয়ার অভ্যাস না থাকায় ব্যাথায় যোনির ভেতর টা ছিড়ে যাচ্ছিল। আমার মনে হচ্ছিল পারবো না, ওকে তক্ষুনি ওটা বের করতে বললাম। হিরোয়ানি বের তো করলই না উল্টে আরো জোরে জোরে ঢোকানো বের করা শুরু করলো। এই চাপ আমি সহ্য করতে পারলাম না। আমি ককিয়ে উঠলাম, “ও মা মরে গেলাম আস্তে…আহ পারছি না বের করুন প্লিজ আমি পারবো না।. ” উনি কোনো কথা শুনলেন না। যৌনতার নেশায় বুদ হয়ে পাগলের মতন আমার শরীর টা ভোগ করতে লাগলেন। ওনার যন্ত্র টা আমার যোনি পুরো টা খেয়ে নিয়ে একেবারে শেষ মাথায় পৌঁছে যাচ্ছিল। শরীর টা অদ্ভুত যৌন শিহরণ খেয়ে কেপে কেপে উঠছিল। আস্তে আস্তে ব্যাথা টা শয়ে আসলো। সেক্সুয়্যাল ইন্টারকোর্স যখন চরম মুহূর্তে পৌঁছে গেছিলো, মিস্টার হিরওয়ানি র কাধের পিছনে এক হাত রেখে আরেক হাতে বেড শিট জাপটে ধরে কোনরকমে অমানুষিক চোদোন খেতে খেতে বলতে পেরেছিলাম, ” করছেন করুন তবে প্লিজ, হাত জোড়ছি, আমার ভেতরে মাল ফেলবেন না। আমার পিরিওড চলছে।” আমার বার বার বলার পর ও হিরওয়ানি জী সেই এক মিসটেক করলেন। ১৫ মিনিটের এক নাগাড়ে চোদনের পর গল গল করে এক বোতল গরম সাদা বীর্যে আমার যোনি ভরিয়ে দিলেন। হিরওয়ানি জীর বীর্যে আমার যোনি দ্বার ভেসে উপচে পড়লো। আমি সেই ভাবে শরীর মিস্টার হিরওয়ানির বুকে এলিয়ে দিয়ে শুয়ে থাকলাম বেশ কিছুক্ষন। উনি আমার ঠোঁট আর বুকে গভীর চুমু খেয়ে আদর করে মনের সুখে আমার নরম শরীর তাকে চটকে বললো, ” বহুত মজা আয়া। তু শালী খানদানি randi হে। সিফ চৌধুরী কে সাথ শোনে পে তু জলদি উপর নেহি উঠেগী। ইসস লিয়ে জব ভি ফোন করুনগা তুযে আনা চাইহে। অর মেরে সাথ নেহানা ভি চাইহে।” এই বলে দুটো পাঁচশো টাকার নোটের বান্ডিল আমার বুকের উপর ছুড়ে দিল। কাঁপা কাঁপা হাতে সেই নোটের বান্ডিল টা নিজের ভ্যানিটি ব্যাগে রেখে বললাম” জরুর আপকি বাত মানুঙ্গী জি but থোড়া পেহলে সে মুঝে ইনফর্ম করনা। তাহলে তৈরি হয়ে আসতে পারবো।” একটা ক্যাব বুক করে বাড়ি ফিরতে ফিরতে, আমি রাই কে বলেছিলাম, ” আমাকে কেনো এসবের মধ্যে টেনে namali বল তো?” রাই আমার হাতে একটা সিগারেট দিয়ে বললো, ” এই নে সব ফ্রুস্ট্রেশন স্ট্রেস এটা নিয়ে টেনে ধোয়ার সাথে উড়িয়ে দে। এসব নিয়ে ভাবিস না। সামনের দিকে ফোকাস কর। দেখ কিছু পেতে গেলে তো কিছু দিতে হয়। তোর ব্যাগে টাকা গুলো তো আর মিথ্যে নয়। সব অভ্যাস হয়ে যাবে।” রাই এর কথায় আমি প্রথম বার সিগারেট টানলাম। আমার মধ্যে তার পর থেকে একটা spoiled woman feelings আসলো।
৩ রা মার্চ
মুম্বাই আসবার পর এক সপ্তাহ আর ডায়েরি লিখতে পারি নি। মডেলিং নিয়ে খুব ব্যস্ত ছিলাম। আর সারাদিন কাজ করে রাতে হোটেলে যত টুকু সময় থাকতাম, মিস্টার চৌধুরী আমার শরীরের যাবতীয় এনার্জি শুষে নিত। মডেলিং কাজ আর মিস্টার চৌধুরী র যৌন চাহিদার স্ট্রেস সামলাতে আমাকে সিগারেট খাওয়া বাড়িয়ে দিতে হলো। দুদিনে একবার করে বাড়িতে ফোন এ কথা বলতাম। স্বামী কে রাই ভালো যত্ন আত্তি করছিল তবুও ও আমাকে ফেরত আসার জন্য অধীর আগ্রহে অপেক্ষা করছিল। একটা কথা বার বার বলছিল, “বিছানায় বউএর অভাব কি তার কোনো বন্ধু পূরণ করতে পারে!”
আজ আমার মডেলিং কাজে অফ দে ছিল। মিস্টার চৌধুরী আমাকে ছাড়লেন না। আরেক টা হোটেলে আমাকে এক ক্লায়েন্ট এর সঙ্গে বিজনেস মিটিং করতে নিয়ে গেলেন। ওখানে আমার শরীর টাকে ভালো রকম গরম করা হলো।তারপর মিস্টার চৌধুরী র সঙ্গে নিজের হোটেলে ফিরে আর থাকতে না পেরে নিজেকে খুলে দিলাম। উনি সারাদিন আমার সঙ্গে সেক্স করলেন। মিস্টার চৌধুরী কিছুটা জোর করেই Anal করলেন। নিজের ক্ষমতার শেষ বিন্দু দিয়ে ওকে বিছানায় সন্তুষ্ট করলাম। ওর আবদার যেভাবে দিন দিন বাড়ছিল, আমার পক্ষে ওকে সন্তুষ্ট করতে যথেষ্ট বেগ পেতে হচ্ছিল।
৫ ই মার্চ
আজ আমার জীবনের ফ্যাশন শো তে ramp walk করলাম। তাও আবার নতুন ডিজাইনের একটা ওয়েস্টার্ন ড্রেস ক্যারি করে। মিস নগপাল আমাকে দারুন ভাবে তৈরি করেছিলেন। আমার কাজ টা দারুন সমাদর পেলো। মাঝে শুধু ফ্যাশন ডিজাইনার আর মেক আপ এর দায়িত্বে থাকা প্রফেশনাল আর্টিস্ট আমাকে নতুন পেয়ে সামান্য sexual harassment করলেন। আমার ব্রা এমনকি প্যান্টির ভেতরেও হাত দিয়েছিলেন। আমি মিস নাগপাল কে বলতে উনি বললেন, প্লিজ নেভার মাইন্ড, কাম পে ফোকাস করো সীরফ। বাকি সব চিজ চলতা হে…” আমি চুপ করে গেছিলাম। ফ্যাশন শো সেরে ক্লান্ত হয়ে যখন হোটেলে ফিরলাম আমি রেস্ট পেলাম না। মিস্টার চৌধুরী আমার রুমে একজন বড়ো ক্লায়েন্ট কে নিমন্ত্রণ করে ডেকে এনেছিল। আমি একটু রেগেই গেছিলাম মিস্টার চৌধুরী র উপর। কিন্তু তারপর শেষ পর্যন্ত ঐ অচেনা অজানা অবাঙালি ব্যাক্তির সঙ্গে মিস্টার চৌধুরী র একটা বিজনেস ডিল ফাইনাল করতে আমাকে ওনার সাথে শুতেই হলো। ঐ ব্যাক্তি রুমে ঢুকেই বেশ নোংরা নজরে আমাকে মাপছিলেন। আমাকে মেঝেতে ফেলে দারুন গতিতে ইন্টারকোর্স করলেন। কোনরকম মায়া দয়া দেখালেন না। কোনো প্রটেকশন ও নেওয়ার প্রয়োজন দেখালেন না। তার উপর ঐ ঠান্ডাতে কার্পেটের উপরে নগ্ন করে আমার শরীর টা প্রায় পিষে দিয়েছিলেন মেঝের সঙ্গে। ঐ লেভেলের ঠাপ আমি জীবনে খাই নি। মাঝ বয়ষী একটু রোগা মতন মাঝারি হাইটের ঐ ক্লায়েন্ট কে সামলাতে আমার একে বারে নাভিশ্বাস উঠে গেছিলো। দেড় ঘণ্টা ধরে ঠাপিয়ে আমার যোনি কে ফালা ফালা করে উনি চরম তৃপ্তি নিয়ে ফেরত গেলেন। উনি চলে যাওয়ার পর মিনিট দশেক আর কোনো ভাবে নড়া চড়া করতে পারলাম না। ঐ ব্যাক্তির আমার শরীরের ফেলে রাখা উচ্ছিষ্টের উপর ড্রিঙ্ক করে মিস্টার চৌধুরী ঝাপিয়ে পড়েছিল।

এক গৃহবধূর পার্সোনাল ডায়েরি – সপ্তম পর্ব
৬ ই মার্চ
তারপর সারা রাত হোটেল রুমে ঠাপ খাওয়া র পরের দিন আমি আর বিছানা ছেড়ে উঠতে পারলাম না। সারাদিন বিছানায় রেস্ট নিয়ে সন্ধ্যে নাগাদ যখন একটু ভালো ফিল করছিলাম ঠিক তখনই দেখলাম মিস্টার আরিয়ান লাগেজ নিয়ে আমার রুমে ঢুকছে। ও এসেই একটা দামী গোল্ড নেকলেস আমার গলায় পরিয়ে দিল। আরিয়ান বললেন, গেট রেডি বেবি, আই অ্যাম হাংরি। ওদিকে মিস্টার চৌধূরী ও আমার উপর থেকে অধিকার হারাতে নারাজ। শেষে ঠিক হলো, দুজনে একসাথে আমার সাথে বিছানায় করবে। আমার শরীর তখন ও খুব ক্লান্ত ছিল, শরীরে আগের মতো সম্পূর্ণ জোর পারছিলাম না। তারপর যখন ওরা জানালো, আমাকে দুজন কে একসাথে সুখ দিতে হবে। আমি ভয় পেয়ে গেলাম। সাথে সাথে মাথা নেড়ে বললাম, আজ রাতে আমি কিছুতেই পারবো না। কিন্তু ওরা কিছুতেই আমার কথা শুনলো না। শেষ মেষ দুজনের মিলিত শক্তির কাছে আমাকে হার মানতে হুলো। আমি চেয়েছিলাম এক এক বারে একটা করে বাড়া ঢোকাতে, কিন্তু ওরা বললো একসাথে দুটো পুরুষ অঙ্গ ই ঢোকাবে।
আমি চেষ্টা করলাম ওদের শেষ মুহূর্ত অবধি বোঝানোর কিন্তু কিছুতেই পারলাম না। একটা স্পেশাল ড্রিঙ্ক পেগ বানিয়ে আমাকে ওটা খাইয়ে মোটামুটি মাতাল করে নিয়ে সেই রাতে প্রথমবার ওরা আমার সঙ্গে দুজন একসাথে শুলো। আমার কোনো বারণ শুনলো না। একসাথে জোর করে আমার দুটো ফুটোতেই পুরুষ অঙ্গ ঢুকিয়েই ছাড়লো। আমি উত্তেজনায় মত্ত হয়ে শীৎকার দিতে আরম্ভ করলাম। আহহ আহহ ওহ ফাক ওহ নো, আহহহ প্লিস লিভ মে এলন মুখ দিয়ে অনবরত বেড়াচ্ছিল। দুজন যেনো বিছানায় একটা খেলনা পেয়ে একসাথে খেলছিল। সারা রাত ওদের জন্য দুই চোখের পাতা এক করতে পারলাম না। ওরা দুজনে যখন এক তালে আমাকে ঠাপাচ্ছিল, আমার স্বামী ফোন করেছিল।
আমি কথা বলতে চাইছিলাম, কিন্তু মিস্টার চৌধুরী আর মিস্টার আরিয়ান কেউ ই আমাকে কথা বলতে দিল না। মিস্টার চৌধুরী তহ মুখের উপর বলেই দিল, ভেতরে আমাদের দুজনের পেনিস নিয়ে তোমার হাসব্যান্ড এর সঙ্গে বেশি পিরীত দেখানোর কোনো দরকার নেই।” আমি কোনরকমে নিচু ক্লান্ত গলায় বললাম ” দুদিন ধরে বাড়িতে ফোন করি নি। আমাকে নিয়ে দুচ্ছিন্তা করছে, আমাকে প্লিজ কথা বলতে দাও।” ফোন টা আবার কানের কাছে বাজতেই, বিরক্ত হয়ে আরিয়ান ফোন টা রিসিভ করলো, আর বললো, ” হেলো কউন, দেখিয়ে বার বার ফোন করকে প্লিস মল্লিকা কো ডিস্টার্ব মট কিজিয়ে। ফোন রাখিয়ে।” এই বলে নিজেই ফোন টা সুইচ অফ করে বললো, ” আব কয়ী ডিস্টার্ব মত করেগা।” আমি হতাশায় চোখ বুজে ফেললাম। ওরা আবারো পরম উত্তেজনায় ঠাপাতে শুরু করল। দুই জন মত্ত পুরুষের মাঝে স্যান্ডুইচ হয়ে আরেক টা বিনিদ্র রজনী কাটালাম।
৮ ই মার্চ
মুম্বাই এর মিস নাগপালের কোম্পানি র হয়ে সব কাজ সেরে আজ আমরা গোয়া পৌঁছলাম, ইভিনিং ফ্লাইটে। আমরা বলতে আমি, মিস্টার চৌধুরী আর মিস্টার আরিয়ান। কোথায় যাচ্ছি আর কোথায় থাকা হবে কিছুই আগে থেকে জানতাম না। দেখলাম ওরা গোয়ার বিখ্যাত Calangute সৈকতের একটা বীচ রিসোর্টে আমাকে নিয়ে গিয়ে তুললো। প্রথম দিন এসে জার্নি তে ভীষণ ব্যাক পেইন হচ্ছিল। রিসোর্ট লাগোয়া একটা স্পা তে আমার ইরোটিক বডি ম্যাসাজ করলো। ওখানে বিদেশি টুরিস্ট রাও ম্যাসাজ নেয়। আরিয়ান আমার Massiur কে অনেক টাকা দিয়ে বলে দিল যে ম্যাডাম কে খুশি করে দিতে হবে। Massiur একবার আমার দিকে তাকিয়ে মুচকি হেসে মিস্টার আরিয়ান কে বললো, এ ম্যাসাজ আমার জীবনের অন্যতম শ্রেষ্ঠ ম্যাসাজ হবে। আর হলো তাই। Massiur লেডি এমন ম্যাসাজ দেওয়া আরম্ভ করলেন, আমার প্যান্টি মিনিট দশেকের ভেতর ভিজে গেলো।
ম্যাসাজ নেওয়ার সময়, আমার গায়ের পিঠের সাইডে একটা সাদা তোয়ালা জড়ানো ছাড়া সারা শরীরে কোথাও একটা সুতো ছিল না। আমার উপর চড়ে নিজের হাউস কোট টাইপের ইউনিফর্ম টা ছেড়ে শুধু ব্রা এবং পান্টি পড়ে ম্যাসাজ আরম্ভ করলেন। আমাকে উল্টে সোজা করে এক্সট্রা টাকার জন্য ব্রেস্ট টাও ভালো করে অনেক ক্ষন ধরে ম্যাসাজ করলেন। বুকে সেনসিটিভ স্পটে হাত পড়তেই আমার নিপেলস গুলো শক্ত খাড়া হয়ে গেলো। ওকে বলাই ছিল, আমাকে যেন ভালো করে স্পেশাল ম্যাসাজ দেওয়া হয়। ম্যাসিউর আরো বেশি টাকার টিপস পাবার জন্য ভালো করে হারবাল অয়েল দিয়ে আমার ফুল বডি ম্যাসাজ করে আমার বুকের দাবনা গুলো ব্যাথা করে দিল। সাথে আমার মাসল লুজ করে আমাকে আরাম ও দিল। স্পা তে ম্যাসাজ নিতে নিতে শরীরের সেক্স উঠে গেছিল। আমি আস্তে আস্তে বেসামাল হয়ে পড়ছি দেখে, মাসিউর এর মুখে হাসির ঝিলিক খেয়ে গেলো।
উনি আমাকে অস্বস্তি তে ফেলে জিগ্যেস করলো, ডু ইউ ওয়ান্ট হ্যাপি এন্ডিং ম্যাম।” এই বলে পাশের এক।টেবিলের ড্রয়ার খুলে একটা ভাইব্রেটর গোছের ছোট মেশিন বের করলো। আমি ভয় পেয়ে বললাম, নো নো আই এম ওকে উইথ ওনলি ম্যাসাজ।” উঠে পড়তে যাবো এমন সময় মসিউর একটা আলতো ধাক্কা দিয়ে নিজের অন্তর্বাস খুলতে খুলতে বললো, ডোন্ট গেট শাই ম্যাডাম, সবাই এখানে এটা করতেই আসে। আপনিও এটা করতেই এসেছেন। তাই ইন্ত্রাকশন আছে।” আমার উপর চড়ে বসে আমার গুদে র মধ্যে ঐ হাতের ছোটো যন্ত্র টা ঢুকিয়ে অন করে দিলো।
আমি কয়েক মুহূর্তের মধ্যে সব কিছু ভুলে, অপার্থিব আনন্দে চোখ বুজে শীৎকার শুরু করলাম। তার পর আরো কুড়ি মিনিট ধরে ঐ ম্যাসিয়র এর কাছে থেকে অর্গানিজম রিলিজ করে মোট একঘন্টার প্রাণবন্ত ম্যাসাজ সিজন কাটিয়ে আমি বিচ রিসোর্টে ফিরে গিয়েই বিছানায় শরীর এলিয়ে দিলাম। ম্যাসাজ করে বডি মাসল ঝুরঝুরে হয়ে গেছিলো আরামে ঘুম এসে যাচ্ছিল। পর পর দুই রাত জেগে মিস্টার চৌধুরীর মতো পুরুষ দের সন্তুষ্ট করলেও গোয়া পৌঁছে আরাম এর সৌভাগ্য আমার ছিল না। সবে চোখ লেগে এসেছিল, এমন সময় মিস্টার চৌধুরী আমার উপর চড়ে বসলেন। আমাকে জড়িয়ে ধরে আদর শুরু করতে, আমি তাকে অনুরোধ করলাম, “প্লিজ এখন না। রাতে করবেন, ছেড়ে দিন আমায়।” মিস্টার চৌধুরী আমার অফ শোল্ডার ড্রেসের স্ট্রিপ খুলতে খুলতে বললো, রাতে আরিয়ান তোমাকে আজ একা খাবে। তাই এখন আমি সুখ করে নেবো। আজ ম্যাসাজ কেমন এঞ্জোয় করলে ডারলিং সেটা বলো। এখনো গরম হয়ে আছো আর উত্তেজনায় বুকের নিপেলস টা দাড়িয়ে আছে দেখছি। চলো সোনা তোমাকে শান্ত করে দিচ্ছি। এই বলে ঠোঁটে ঠোঁট লাগিয়ে চুমু খেতে খেতে আমার পরনের ড্রেস টা টেনে খুলে দিয়ে আমার উপর শুয়ে পড়ল। কতক্ষন ধরে আদর করেছিল জানি না। যখন তারপর চোখ খুললাম, তখন বেশ রাত হয়ে গেছে। মিস্টার চৌধুরীর জায়গায় আরিয়ান আমার শরীর টাকে চটকাচ্ছে। আর শরীর টা চটকে চটকে লাল করে ফেলেছে।
১৩ ই মার্চ
পাঁচ দিন ঐ গোয়ার বিচ রিসোর্টে কী ভাবে যে কেটে গেলো বুঝতেই পারলাম না। মিস্টার চৌধুরী আর মিস্টার আরিয়ান পালা করে আমার সঙ্গে শুলো। দুজনের সঙ্গে একাধিক বার হট শাওয়ার নিলাম। আমার শরীরের প্রতি টা ইঞ্চি ওরা ভালো করে চিনে নিয়েছিল। সকাল বিকেল রাত খালি সেক্স সেক্স আর সেক্স, শুধু মিস্টার চৌধুরী আর আরিয়ান ই না। এর মধ্যে আরো দুই তিন জনের সঙ্গে আমাকে শুতে হয়েছিল। নেশায় মত্ত হয়ে কার সঙ্গে কখন শুচ্ছি কিছু বুঝতে পারছিলাম না। এর মাঝে একদিন সেই রাই এর সঙ্গে শপিং করে কেনা ওয়ান পিস বিকিনি পরে সমুদ্রে স্নান করেছিলাম। আরিয়ান আর মিস্টার চৌধুরী জলের মধ্যেও আমাকে ভোগ করতে ছাড়লো না। ওদের দুজনের মিলিত আক্রমণে আমি জলের মধ্যেও খাবি খাচ্ছিলাম। বাকি সময় টা আমি একটুকু রেস্ট পেলাম না। সব থেকে বড় ব্যাপার এই পাঁচ দিন একবারের বেশি বাড়িতে কল করতে পারলাম না।
একটা সময় পর যখন শরীর আর চলছিল না এই ৬ নম্বর দিনে এসে মিস্টার চৌধুরী জোর করে আমাকে একটা কী ট্যাবলেট রেড ওয়াইন এর সঙ্গে মিশিয়ে খাইয়ে দিলেন। ওটা খাবার সঙ্গে সঙ্গে যেনো শরীরে আবার কামের আগুন জ্বললো। মিস্টার চৌধুরী বললো, কি হলো ডারলিং, ম্যাজিক পিল কাজ করছে তো, এই বার সারা রাত ধরে তুমি যেকোনো পুরুষের শরীরের সঙ্গে খেল তে পারবে আর কামের আগুনে জ্বলবে । আমি বললাম, এরকম কর আমার সাথে ছেড়ে দাও আমি বাড়ি যাব। তার আগে আরো একজন বড় ক্লায়েন্ট কে তোমাকে সন্তুষ্ট করতে হবে। উনি একজন ধনী বিদেশী। ওকে খুশি করতে পারলে আমাদের কোম্পানি কে আর আগামী ১০ বছরের জন্য পিছনে ফিরে তাকাতে হবে না। ওনার সঙ্গে সারারাত enjoy Kore, কাল মর্নিং রিসোর্টে ফিরবে, তারপর লাঞ্চ সেরে আমরা এয়ার পর্টের উদ্দেশ্যে রওনা হবো। ঠিক আছে।। রাতে ডিনার সেরে একটা বিলাস বহুল অভিজাত আমোদ তরী তে আমাকে নিয়ে যাওয়া হলো। ওদের কথায় খুব আকর্ষণীয় ভাবে সাজলাম। সেক্সী বডি কন ড্রেস পড়ে আর পায়ে হাই হিল জুতো পরে ফুল ওয়েষ্টার্ন লুকে সেজে, জলের মধ্যে আমোদ তরীর ভিতর একটা নৈশ পার্টি তে যেতে হল।
মিস্টার চৌধুরী আমাকে ক্লায়েন্ট এর সঙ্গে আলাপ করিয়ে দিলেন। আমার বুক পেট ভিজিয়ে ওরা শ্যামপেনের বোতল খোলা হল। তারপর চি য়ারস বলে একসাথে সূরা পাত্রে চুমুক দেওয়া হলো। দু একটা নরমাল বিজনেস টকের আমার চোখ বিদেশি পুরুষ টির দিকে গেল। উনি জাতে আমেরিকান ছিলেন। একটা বিশাল বড়ো বহুজাতিক সংস্থার ডিরেক্টর। মিস্টার চৌধুরী ইমপ্রেস করবার চেষ্টা চালাচ্ছে তখন আমি লক্ষ্য করলাম, ওনার মন মিস্টার চৌধুরীর পেপারস এ নেই বরং চ ওনার দুই চোখ আটকে গেছে আমার উন্মুক্ত ভিভাজিকার উপর। কয়েক মুহূর্ত পর উনি আমাকে ওর কাছে ডাকলেন। মিস্টার চৌধুরীর ইশারায় আমি তৈরি ছিলাম, মিষ্টি হেসে উঠে গিয়ে ওই বিদেশি ক্লায়েন্ট এর কোলে গিয়ে বসলাম। ঐ বিদেশি ব্যাক্তি আমার কাঁধের কাছে নিজের বড়ো বড়ো আঙ্গুল দিয়ে খেলতে খেলতে বললো, ইউ নো মিস্টার চৌধুরী আমি এখানে এসে শুনেছিলাম, ইন্ডিয়ান গার্ল রা নাকি ভীষন শাই হয় রক্ষণশীল প্রকৃতির হয় কিন্তু মিসেস মল্লিকা কে দেখে আমার সেই ভুল ভেঙে গেলো। আই অ্যাম রিয়ালি ইমপ্রেস, যদি আপনি কিছু মাইন্ড না করেন আমি এনাকে আমার প্রাইভেট সুইট এ নিয়ে যেতে পারি?
মিস্টার চৌধুরী হেসে বললেন, ইয়েস শি ইজ অল ইউর্স ফর দিস নাইট…প্লিজ এঞ্জোয় ….
ওকে ডিল ওয়াজ ডান। ইউ গেট পেপারস উইথ ইন থ্রি ডেস।” মিস্টার চৌধুরী ঐ সাহেব কে ধন্যবাদ জানিয়ে আমাকে ওনার হেফাজতে রেখে চলে গেলো।
এরপর ঐ আমেরিকান সাহেব আমার হাত ধরে ঐ প্রমোদ তরীর উপরের অংশে অবস্থিত তার বিলাস বহুল সুইটে নিয়ে গেল। দরজা ঠেলে ভেতরে ঢুকবার সময় পিছন থেকে টান মেরে পোশাকের বাঁধন খুলে দিল। সুইটের ভেতর প্রবেশ করে আমাকে নরম বিছানায় ঠেলে দিল। তার পর আর কি মদ পেটে যেতে আর মিস্টার চৌধুরীর দেওয়া ওষুধের গুনে নেশায় আমার সারা শরীর জ্বলছিল। নিজের পরনের কাপড় টা খুব ভারী লাগছিল। ঐ সাহেব টান মেরে বাকি পোশাক টা খুলে ফেলতে একটু যেন রিলিফ ই পেলাম। প্রথম বার এক বিদেশি পুরুষের সামনে নগ্ন হতে একটা আলাদা শিহরণ জাগলো।
বাকি রাত কোনো ছেলে খেলা করলেন না। তাড়িয়ে তাড়িয়ে আমার শরীর এর প্রতি টা ইঞ্চি ভোগ করলেন আর আমিও নেশার গুনে বেশ তাড়াতাড়ি সহজ হয়ে গেলাম। ঐ মার্কিন সাহেব আমাকেও দারুন ভাবে মস্তি দিলেন । জীবনে প্রথম বার কোনো বিদেশি সক্ষম পুরুষের সঙ্গে শুয়ে এক অন্য অনুভূতি হচ্ছিল। শেষে ভোর বেলা যখন উনি আমাকে ছাড়লেন আমার সারা শরীর ব্যাথায় টনটন করছে। আমি বুঝতে পারছিলাম, আগের সাধারণ গৃহবধূ মল্লিকা থেকে আজকের এই মল্লিকা কত আলাদা। আমার উত্তরণ হয়েছে, কিন্তু নিচের দিকে নাকি উপরের দিকে বুঝতে পারলাম না। ঐ আমোদ তরী থেকে নেমে গাড়িতে করে রিসোর্টে ফিরে আমি ক্লান্ত হয়ে ঘুমিয়ে পড়লাম। সেদিন আমাদের মুম্বাই ফেরার কথা থাকলেও, ফেরা হলো না। সেদিন সন্ধ্যেবেলা হালকা শপিং করলাম। আরিয়ান আমার শপিংয়ের বিল মিটিয়েছিল।
তারপর রাতে দারুন নেশা করে দুজনের সঙ্গে এক বিছানায় গিয়ে উঠলাম। মিস্টার চৌধুরী আর আরিয়ান গোয়া ট্রিপে শেষ বারের মত প্রাণ ভোরে চুদলো। ওরা শেষ বার প্রটেকশন ছাড়াই যৌন মিলন করলো। আমি দুজন কে একসাথে শান্ত করতে পারছিলাম না। আমার দুধ নাভি যোনির মুখে জিভ লাগিয়ে চুষে চুষে আমাকে সুখের সপ্তম সাগরে ভাসিয়ে নিয়ে গেছিল। তারপর একসাথে দুটো পুরুষ অঙ্গ আমার শরীরে প্রবেশ করতেই আমার নড়া চড়ার কোনো উপায় রাখলো না। গভীর রাত অবধি অবাধ যৌনতা তে মত্ত থাকার পর এক বিছানায় তিনজন মিলে ঘনিষ্ঠ জোরাজুরি অবস্থায় সারা রাত সমুদ্রে র দিকে মুখ করে শুয়ে দারুন স্পিরিটে গোয়া তে আমার শেষ রাত কাটলো। গোয়ায় কাটানো আমার শেষ রাতেও ঘুমনোর সুযোগ পেলাম না বললেই চলে।

এক গৃহবধূর পার্সোনাল ডায়েরি – অষ্টম পর্ব
১৪ ই মার্চ
আজ গোয়া থেকে মুম্বাই ফিরলাম। ফিরে একটা বেলার জন্য হোটেলে উঠলাম। সেখানে ভাল করে স্নান সারলাম। মিস্টার চৌধূরী আমার সঙ্গে শাওয়ার নিয়েছিলেন। থেকে নিজের শহরে ফেরার জন্য রাতের ফ্লাইট এর টিকিট কাটা ছিল। একটা দামী রেস্টরা তে কন্টিনেন্টাল খানা খেয়ে মুম্বাই এয়ার পোর্ট এর উদ্দেশ্যে রওনা দিয়েছিলাম। মিস্টার চৌধুরি একাই আমার সাথে ফিরলো। মিস্টার আরিয়ান এর মুম্বাই তে একটা কি কাজ এর জন্য থেকে গেছিলো। থেকে গেলো। বাদে বাড়ি ফিরতে পারবো ভেবে ভীষণ আনন্দিত ছিলাম। গভীর রাতে শহরে ফিরে আমি আর মিস্টার চৌধুরী এয়ার পোর্ট সংলগ্ন একটা হোটেলে চেক ইন করলাম। আমি জার্নি করে ভয়ানক ক্লান্ত ছিলাম তাই হয়তো মিস্টার চৌধুরী আমাকে হালকা চটকে সেই রাতের মতন ছেড়ে দিয়েছিল।
১৫ ই মার্চ
আজ সকাল দশটা নাগাদ হোটেল থেকে চেক আউট করে বাড়ির উদ্দেশ্যে রওনা দিলাম। অনেক দিন পর ফাইনালি বাড়ি ফিরছি বলে ভীষণ একসাইটেড ছিলাম। ফোন করে রাই কেও ইনফর্ম করে দিয়েছিলাম। রাই ও আমার সঙ্গে মিট করার জন্য সমান একসাইটেড ছিল। আমার মুম্বাই আর গোয়ার অভিজ্ঞতার কথা শোনবার জন্য ওর আর সবুর সই ছিল না। মিস্টার চৌধুরি কিন্তু আমার জন্য একটা বিরাট বড়ো সারপ্রাইজ রেখেছিলেন। আমার মনে প্রথম সন্দেহ হলো । বাড়ির দিকে না গিয়ে গাড়িটা অন্য দিকে যাচ্ছিল। শেষে একটা নতুন বিলাস বহুল ২২ তলা অ্যাপার্টমেন্টের সামনে এসে মিস্টার চৌধুরীর গাড়ি টা থামলো। আমাকে গাড়ি থেকে নামিয়ে হাত ধরে সোজা ১৪ তলায় নিয়ে গিয়ে একটা নতুন ৩bhk ফ্ল্যাটের মধ্যে নিয়ে এসে, পকেট থেকে চাবি বের করে বললো আজ থেকে তুমি এখানে থাকবে। এই ফ্ল্যাট টা আজ থেকে তোমার। আমি অবাক হয়ে ওর দিকে তাকিয়ে বললাম, এটা কি বলছেন, আমি বাড়ি ফিরব না।,” মিস্টার চৌধুরী আমার কাধে হাত বোলাতে বোলাতে বললেন, না সোনা আজ তো তোমার বাড়ি ফেরা যাবে না। অনেক কাজ তোমার। রাতের বেলা এখানেই ক্লায়েন্ট আসবে। আর আমরা তো আসবই। তোমাকে হোটেলে আর যেতে হবে না। এখানে থেকেই কাজ টা করবে বুঝেছ।”
ফ্ল্যাট টা দামী দামী সব আসবাব পত্রে সাজানো। ড্রইং রুমের এক কোনে বাহারি ড্রিঙ্কস ক্যাবিনেট তাও দামী বিদেশি মদ এর বোতলে আর বাহারি সব গ্লাসে সাজানো ছিল।
আমার পায়ের তলা থেকে যেন মাটি সরে গেলো। আমি বললাম, ” এটা আমার সঙ্গে করতে পারেন না। আমি এই কাজ আর করবো না।” মিস্টার চৌধুরী আমার কথা শুনে মুচকি হেসে আমার হাত ধরে ভেতরে টেনে নিয়ে যেতে যেতে বলল,
“ওহ কম অন, এসো তোমার বেডরুম টা দেখাই, দেখো তো কেমন সাজিয়েছি।” বেডরুমে এসে দেখলাম এই বেডরুমটা তে আমার বাড়ির তিনটে বেডরুম ঢুকে যাবে, এত তাই বড়ো, দেওয়ালে একটা নুড মডেল এর পিকচার ফ্রেম বাঁধানো ছিল, বিছানার পাশের সব টেবিলে সুগন্ধি সব ক্যান্ডেল সাজানো। সব মিলিয়ে সুন্দর করে রাত্রি যাপনের জন্য সাজানো। আমি সব কিছু দেখে বললাম, “বাড়ি যাবো অনেক দিন ওদের দেখি নি। প্লিজ।”
মনে রেখো তুমি কিন্তু একটা কন্ট্রাক্ট সাইন করে ফেলেছ, ওখানে পরিষ্কার টার্মস দেওয়া ছিল, যে তুমি কাজের সুবিধার জন্য কোথায় থাকবে, সেটা কমপ্লিট লি কোম্পানি ডিসাইড করবে। বুঝেছ। তুমি অফ কোর্স বাড়ী ফিরবে, তবে চার পাঁচ দিন পর একবার করে বাড়ি যাবে কেমন। রাই মিত্র তোমার আবসেন্সে তোমার বাড়ি পরিবার টা ভালই সামলে নিচ্ছে। স্বামীর সঙ্গে একটা ভালো শারীরিক সম্পর্ক গড়ে উঠেছে।” আমি বললাম, আমি এই জীবন চাই নি মিস্টার চৌধুরী। আমাকে ছেড়ে দিন। এসব আর ভালো লাগছে না।
মিস্টার চৌধুরী একটা আটাচি কেস নিয়ে এসে ঘরের বিছানায় উপর রেখে খুলে দিয়ে বললো,” এই দেখো, তোমাকে আমরা এখানে থাকবার জন্য ভালো ভাবে কম্পেন্সট করবো, এটা অ্যাডভান্স। মাস গেলে আর এক পেটি পাবে। এত টাকা পাবে, খরচা করে শেষ করতে পারবে না, আজ থেকে আমার গাড়ি টা ও তুমি টুয়েন্টি ফোর সেভেন ইউজ করতে পারবে।” আমি দেখলাম ঐ অ্যাটাচি কেস এ ভর্তি থাক থাক নতুন পাঁচশো টাকার নোট সাজানো। ওতো টাকা আমি কোনোদিন এক সাথে দেখি নি। টাকা দেখে মাথা টা ঘুরে গেলো। পরিবারের চিন্তা পিছনের সারিতে চলে গেল, আমি কিংকর্তব্য বিমূঢ় হয়ে দাড়িয়ে আছি দেখে, মিস্টার চৌধুরী এগিয়ে এসে আমাকে জড়িয়ে ধরে আমার কাঁধে নিজের মুখ ঘষতে ঘষতে বলল, ” রাতে তো ক্লায়েন্ট আসছে, এই বেলা আমাকে একটু খুশি করে দাও। গলা টা শুকিয়ে গেছে আমাকে ড্রিঙ্ক নিতে হবে আর তুমিও নেবে কেমন, তার আগে চলো এক রাউন্ড হয়ে যাক।।”
আমি চাপা স্বরে মুখ নামিয়ে বললাম, আজ প্রটেকশন নিয়ে করবেন প্লিজ আমার না পেরিয়ডস শুরু হয়েছে, মিস্টার চৌধুরী আমার ড্রেসের স্ট্রিপ খুলতে খুলতে বললো, ” ভালোই তো, এটাও আমার ভাবনা আছে, আজ থেকে ৬-৭ মাস পর, উই শুড গো ফর বেবি। আই ওয়ান্ট এ বেবি ফ্রম ইউ। আমার স্ত্রী অনেক চেষ্টা করেও সন্তান সুখ দিতে পারেনি। তোমার মতন সেক্সী লেডি আমার বাচ্চার মা হবে এর থেকে ভালো আর কি আর হতে পারে।”
আমি বললাম, এই বয়েসে এসে বেবি, আমি পারবো না।” মিস্টার চৌধুরী হাতের সূক্ষ্ম ছোওয়া তে আমার মাথার চুল থেকে হেয়ার ক্লিপ টা খুলে নিয়ে বললো, কেনো পারবে না এর জন্য কম্পেন্সেট করবো, মাত্র ৯-১০ মাসের তো ব্যাপার। তারপর বাচ্চা তোমার কাছে থাকবে না আমার স্ত্রীর কাছে সেটা আমরা পরে বসে ডিসাইড করে নেবো।” আমি চুপ করে গেলাম আর চোখে টাকা ভর্তি ব্যাগ টা র দিকে তাকিয়ে মিস্টার চৌধুরী র হাতে নিজেকে ছেড়ে দিলাম। আমাকে সম্পূর্ণ নিজের হাতে পেয়ে প্রাণ ভরে আমাকে নগ্ন করে আদর করতে শুরু করলো। আমরা বিছানায় যেখানে শুয়ে করছিলাম মিনিট পাঁচেক পর ই আমার ফোন টা বাজতে শুরু করলো। মিস্টার চৌধুরী কে কয়েক মুহূর্তের জন্য থামিয়ে মাথা টা একটু তুলে দেখলাম, আমার স্বামী নিখিলেশ কল করছে, আমি অনেকদিন বাদে বাড়ি ফিরছি বলে নিখিলেশ এলাহী সব আয়োজন করে রেখেছিল। আমি না ফেরা মানে সব আনন্দ মাটি হয়ে যাওয়া, আমার তখন খুব খারাপ লাগলো, ওর মুখের উপর আমি বাড়ি আসতে পারছি না বলতে, তাই কল রিসিভ করলাম না। একটা লম্বা শ্বাস নিয়ে, ফোন টা হাতে নিয়ে নিখিলেশ এর কল টা কেটে, টেকস্ট করলাম, ” মিটিং এ আছি, ডিস্টার্ব করো না। পরে কথা বলছি। আমার জন্য ওয়েট করো না প্লিজ।” এটা করে আবারো চৌধূরী সাহেব কে নিজের শরীর টা ছেড়ে দিলাম।
আমি ঐ নতুন ফ্লাটে একটা নতুন জীবনে আটকে গেলাম। কন্ট্রাক্ট এর জাতাকলে ফেসে আমি কিছুতেই ঐ কর্পোরেট দুনিয়ার অন্ধকার থেকে বেরোতে পারলাম না। ওদের হয়ে কাজ করে টাকা বাড়ি গাড়ি সব সুখ পেলাম কিন্তু প্রাণে শান্তি আসলো না। চৌধুরীর সাথে ফ্ল্যাটে এসে ওঠার পর আমার বাড়ি ফেরা পিছিয়ে গেলো। প্রথম প্রথম টাকার জন্য জঘন্য সব কাজ করতে বিবেকের দংশন অনুভব করলেও, ক্রমে ক্রমে সব কিছু হাসি মুখে করবার অভ্যাস হয়ে গেলো। সপ্তাহে একদিন বাড়িতে গিয়ে স্বামী কে বিছানায় উজাড় করে দিতাম ছেলের সঙ্গে যত টা সম্ভব কোয়ালিটি টাইম স্পেনট করার চেষ্টা করতাম। আস্তে আস্তে আমার স্বামীও আমার লাইফ টা একসেপ্ট করে নিয়েছিল।
১৮ ই মার্চ
ঐ নতুন ফ্ল্যাটে এক সপ্তাহ একটা ব্যাস্ত যৌন জীবন কাটিয়ে অবশেষে বাড়ি ফেরার সুযোগ আসল। কয়েক ঘন্টার জন্য দীর্ঘ দেড় মাস বাদে বাড়ি ফিরলাম। আমার বর অনেক দিন পর আমাকে নিজের কাছে পেয়ে আর কোনো টালবাহানা না করে সোজা বেডরুমে নিয়ে গেল। সেখানে চরম উত্তেজক আধ ঘন্টা সময় ঘনিষ্ট অন্তরঙ্গ ভাবে কাটিয়ে বর কে শান্ত করতে হলো। আমি ওকে আটকালাম না, বিছানায় নিখিলেশ এর সব আবদার সব খায়িশ মেটালাম। আসল কাজ টা হবার পর, বরের সঙ্গে জোরাজুরি অবস্থায় বিছানায় একটা চাদরের তলায় যখন শুয়ে বিশ্রাম নিচ্ছি। সেই নিখিলেশ আমার চুলে বিলি কেটে দিতে দিতে বললো, ” উফফ কতদিন পর তোমার সঙ্গে করলাম বলো তো। এই বার একটানা আমরা করবো। তুমি বেশ নিজেকে আর সুন্দর করে ফেলেছ। রাই বলেছিল, তোমাকে কাজের জন্য, অনেকের সাথে শুতে হচ্ছে। জানি না কেনো আজ করবার সময় একটা বাড়তি উত্তাপ অনুভব করলাম। আমাকে ছেড়ে যেও না প্লিজ। তোমাকে ছাড়া আমি থাকতে পারবো না।”
আমি বরের বাহুবন্ধন থেকে নিজের ঘড়ি দেখলাম, আর বললাম, ” এই শোনো আমাকে না বেরোতে হবে। ছাড়ো আমাকে আমি আবার পরের সপ্তাহে আসবো তোমার খিদে মেটাতে কেমন,?”
আমার বর বললো, সেকি কোথায় যাবে? দেড় মাস পর বাড়িতে ফিরে মাত্র কয়েক ঘন্টা কাটিয়ে চলে যাবে।
আমি ওকে জড়িয়ে ওর কানের কাছে একটা কিস করে বিছানার পাশে বেডসাইড টেবিলের উপরে রাখা আমার পার্স খুলে সিগারেটের প্যাকেট আর লাইটার টা বের করে একটা সিগারেট ধরিয়ে বেশ খানিকটা ধোয়া ছেড়ে বললাম, ” আই অ্যাম সরি, এটাই সত্যি এখন থেকে আমাকে আলাদা থাকতে হবে। সপ্তাহে একদিন তোমাদের কাছে থাকবো। শরীর টা আজ আছে কাল নেই, তার মধ্যে আমাকে যত টা উপরে উঠবার উঠতে হবে। প্লিজ মন খারাপ করো না।”
নিখিলেশ এর মুড অফ হয়ে গেল আমার কথা শুনে। ওকে চাঙ্গা করার জন্য ওর গলা জড়িয়ে বললাম, “এই যে অমনি মুখ ভার হয়ে গেল না? আমি এই সব কাজ করার জন্য করছি? সব তো তোমাদের জন্য, আমি চাই তুমি একটা বিজনেস স্টার্ট কর। তোমার অভিজ্ঞতা আছে, তুমি ঠিক পারবে। টাকার জন্য ভেবো না। তোমার বউ আছে তো, যত টাকার লাগবে আমি দেবো। বুঝেছ। তার পর তোমার বিজনেস দাড়িয়ে গেলেই আমার মুক্তি।”
বর আমাকে জড়িয়ে আদর করতে করতে বলল, ” আমি প্রমিজ করছি মল্লিকা যত তাড়াতাড়ি সম্ভব তোমাকে আমি নিজের কাছে ছাড়িয়ে নিয়ে আসবো। আজ থেকে দ্বিগুণ পরিশ্রম করবো।” আমি ওর আদরে সারা দিয়ে বললাম ” আমিও তো সেটাই চাই। শুধু তোমার হয়ে থাকতে। যার সঙ্গেই শুই না কেনো ভালো তো সেফ তোমাকেই বেসেছি।” “ওহ নিখিলেশ এরকম ভাবে আমাকে আদর করো না প্লিজ, আবার গরম হয়ে যাচ্ছি।” আমার বর নিজের মুখ টা আমার বুকের উপর নামিয়ে দিয়ে চুমু খেতে খেতে বলল, ” এই শোনো না, আমার সাথে এখন আরেক বার করবে, আমি ফিল ভেরি ভেরি হর্নি।” আমি চোখ বন্ধ করে বললাম, ” ওকে সুইট হার্ট, আমাকে করো, আমার প্যান্টি খোলাই আছে। ঢুকিয়ে দাও সোনা। তাড়াতাড়ি কর। আমাকে আবার রেডি হয়ে বেরোতে হবে।” নিখিলেশ আমাকে টেনে ফের বিছানায় শুয়ে দিয়ে আদর করতে শুরু করলো। আর আমিও স্বামীর সঙ্গে আদিম খেলায় মেতে উঠলাম।
২০ ই মার্চ
তারপর নিজের নতুন ফ্ল্যাটে ফিরে নিজের আর নিজের পরিবারের ভবিষ্যত সুনিচ্ছিত করার দিকে মনোযোগ করলাম। নিজের পুরনো মূল্যবোধ আর জীবন দর্শন থেকে ৩৬০ ডিগ্রি সরে এসে যত জনের সঙ্গে শোওয়া প্রয়োজন তত জনের সঙ্গে এক বিছানায় শুতে শুরু করলাম। জীবন টা যত টা সহজ হবে ভেবেছিলাম ততটা হলো না। সবাই শুধু আমার শরীর তাই চায়। ইতিমধ্যে মিস্টার চৌধুরি আর মিস্টার হিরওয়ানির মধ্যে আমাকে নিয়ে দড়ি টানাটানি শুরু হয়ে গেছে। কে আমার নিয়ন্ত্রণ ক্ষমতা পাবে তাই নিয়েই দুই বিজনেস পার্টনার এর মধ্যে ঝামেলা হচ্ছে। শেষ মেশ আমি যাকে সমর্থন করবো, সেই জিতবে। কালকের মতন আজেকেও মিস্টার হিরয়ানি আজকেও আমার এই ফ্ল্যাটে আসবে বলে জানিয়েছেন। উনি আমাকে একটা বড় অফার দিয়েছেন। জানি না ওনাকে বিশ্বাস করা ঠিক হবে না। রাই উপদেশ দিয়েছে, চৌধুরীর থেকে মিস্টার হিরয়ানির সাথে কাজ করলে আমার লাভ হবে বেশি। আমি এখন ও কোনো ডিসিশন নিতে পারি নি। তবে খুব তাড়াতাড়ি আমাকে এই বিষয়ে ডিসিশন নিতে হবে। মিস্টার হিরোয়ানি র প্রস্তাবে রাজি হলে আমাকে এই ফ্ল্যাট ছেড়ে একটা থ্রী স্টার হোটেলে গিয়ে উঠতে হবে। আর কাজ টাও ভীষণ রকম চ্যালেঞ্জিং। জানি না কপালে আর কী কী অপেক্ষা করে আছে! অনেক কথা জমে আছে মনে, অজান্তে অনেক পাপ করেছি, এই শেষ ক মাসে অনেক মানুষ কে চিনলাম, একটা জিনিষ শিখেছি মানুষ টাকার জন্য সব কিছু করতে পারে, জানি না সেসব সত্যি কথা কোনোদিন লিখতে পারবো কিনা। যেসব কাজ কর্মের সাক্ষী হচ্ছি সেগুলো মোটেই আইন কানুন মেনে হচ্ছে বলা যাবে না। ব্যাবসার জন্য অনেক অন্ধকার ময় রাস্তা নিতে হয়। এখন সেগুলো সত্যি সত্যি লিখলে আমার প্রাণ সংশয় পর্যন্ত হতে পারে। ডায়েরিতে মিথ্যে কথা লেখা যায় না। কাজেই এখন কিছুদিন লেখা বন্ধ রাখতে হবে, এছাড়া আজকের মতন থামবো, কারণ ইতিমধ্যে পাশের রুমে আমার ডাক পড়েছে। মিস্টার চৌধুরীর একজন বন্ধু সেখানে আমার জন্য অপেক্ষা করছে। আর যদি না লিখতে পারি, আমার এই প্রিয় ডায়েরি টা আমার বাড়িতে নিখিলেশ এর কাছে পাঠিয়ে দেবো আমার স্বামী এটা আমার মেমোরি হিসাবে নিচ্ছয় যত্ন করে রেখে দেবো। গুড বাই…
পুনশ্চ: মল্লিকা তার স্বামীর কাছে ফিরে আসতে পেরেছিল কিনা আমার জানা নেই, তার স্বামী সম্ভবত অন্য একজন কে বছর তিনেক আগে তার এই বাড়ি টি বিক্রি করে দেন। তারপর ওনারা কোথায় যান, কেউ বলতে পারে না, বছর দুই আগে এই ২/১২ নম্বর বাড়িতে উঠে এসে একটা পুরনো আলমারি র দেরাজ থেকে তার এই পার্সোনাল ডায়েরি টি আমি পাই। এই আলমারি টি সম্ভবত কোন এক সময় মিসেস মল্লিকা দত্ত ব্যাবহার করতেন। এই ডায়েরির প্রথম পাতা তে মল্লিকা দক্তর সিগনেচার করা ছিল। পড়ে ইন্টারেস্টিং লাগলো। তাই তার ডায়েরির শেষ কটা পাতা আপনাদের সঙ্গে শেয়ার করলাম। এই কাহিনী কেমন লাগলো অবশ্যই কমেন্ট করে জানাবেন।

।।সমাপ্ত।।

Related Posts

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *


  • https://www.neuselibrary.org/maillotdefootpascher.html
  • https://www.neuselibrary.org/maillotdefootpascher2021.html
  • https://www.neuselibrary.org/maillotdefootpersonnalisé.html
  • https://luxcreo.com/maillotdefootpascher.html
  • https://luxcreo.com/maillotdefootpascher2022.html
  • https://luxcreo.com/maillotdefootpascherchine.html
  • https://zionmarket.com/cheapauthenticnfljerseyschina.html
  • https://zionmarket.com/cheapnfljerseyssupply.html
  • https://zionmarket.com/wholesalecheapnfljerseys.html
  • https://bbctribune.com/cheapnfljerseyschina.html
  • https://bbctribune.com/cheapnfljerseysfreeshipping.html
  • https://bbctribune.com/wholesalesoccerjersey.html
  • http://radioculturafoz.com.br/maillotdefootpascher.html
  • https://radioculturafoz.com.br/maillotdefootpersonnaliséspascher.html
  • https://radioculturafoz.com.br/maillotfootcoupedumonde.html
  • http://eurolux.ayz.pl/maillotdefootpascher.html
  • http://eurolux.ayz.pl/maillotfootpascher.html
  • http://eurolux.ayz.pl/maillotfootpascherthailande.html
  • http://jacovor198.198.axc.nl/cheapnbajerseys.html
  • http://jacovor198.198.axc.nl/cheapnikenbajerseys.html
  • http://jacovor198.198.axc.nl/cheapnikenfllimitedjerseys.html
  • https://ve.digital/discountnikenfllimitedjerseys.html
  • https://ve.digital/wholesalenikenfllimitedjerseys.html
  • https://ve.digital/replicanikenfllimitedjerseys.html
  • https://fgx.sfh.mybluehost.me/maillotdefootpascher.html
  • https://fgx.sfh.mybluehost.me/maillotsdefootfactory.html
  • https://fgx.sfh.mybluehost.me/maillotsdefootpascher.html
  • https://sapokone.mydome.jp/maillotdefootpascher.html
  • https://sapokone.mydome.jp/maillotsdefootpascher2022.html
  • https://sapokone.mydome.jp/maillotsdefootballthailande.html
  • https://bbctribune.com
  • https://bbfseries.com
  • https://bbonlineacademy.com
  • https://bbtproject.eu
  • https://beautiful-cbd.com
  • https://beautyspacolumbus.com
  • https://beautytv.pe
  • https://bebeclement.com
  • http://becherwette-pouch.de
  • http://becomingyourbestselfacademy.com
  • http://bedbugsheater.com
  • http://behpart.com
  • https://behroo165.com
  • https://beitliveit.com
  • https://belastingdienst.sr
  • https://bellarow.com
  • https://belleandgary.life
  • https://bellemax.ovh
  • https://bellezeriard.com
  • https://bellnbread.ch
  • https://belnut.com.br
  • https://benefitsclaim.com
  • http://ben-len.com
  • https://benningtonanimalhospital.com
  • http://benoitsimian.fr
  • http://beogradskiportal.rs
  • http://berdoo3.com
  • https://beregitechudo.ru
  • http://berlineland.com
  • http://berlinmusicstation.com